মেসার্স’ (MESSRS), এই ইংরেজি শব্দটি সাধারণত বিভিন্ন বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নামের আগে ব্যবহৃত হতে দেখা যায়। কিন্তু এই শব্দটি বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই ভুলভাবে ব্যবহার করা হয় আমাদের দেশে। অজ্ঞতা এবং অসচেতনতার কারণেই এটা হয়ে থাকে।
‘মেসার্স’ শব্দটি ইংরেজি ‘মিস্টার’ শব্দের বহুবচন। সুতরাং যেসব বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নাম কোনো মানুষের নামে এবং তার সঙ্গে অন্য আরো মানুষের সংশ্লিষ্টতা প্রকাশ করে (যেমন ‘আলম অ্যান্ড ব্রাদার্স’ বা ‘গণেশ অ্যান্ড কম্পানি’), সেসব বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নামের ক্ষেত্রে ‘মেসার্স’ শব্দটি ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে যেসব বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নাম কোনো মানুষের নামে নয় (যেমন ‘কর্ণফুলী ট্রেডার্স’ বা ‘সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিস’), সেসব প্রতিষ্ঠানের নামের আগে ‘মেসার্স’ শব্দটির ব্যবহার সঠিক নয়। আবার আমরা যেমন নিজেরা নিজেদের নাম বলার ক্ষেত্রে ‘মিস্টার’, ‘জনাব’ বা ‘শ্রী’ বলি না (উদাহরণস্বরূপ কারো নাম জিজ্ঞেস করলে তিনি যেমন নিজের নাম ‘আমার নাম মিস্টার নূরুল আলম’ বা ‘আমার নাম শ্রী মোহন লাল মহাজন’ বলেন না), বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ‘মেসার্স’ শব্দটির ব্যবহার অনুরূপ হওয়া উচিত। অর্থাৎ কোনো বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নাম (আলম অ্যান্ড ব্যাদার্স বা ‘গণেশ অ্যান্ড কম্পানি’ হলেও নিজে ‘মেসার্স’ শব্দটি ব্যবহার করা যাবে না (যেমন সাইন বোর্ডে, লেটার হেডে, বিভিন্ন লাইসেন্সে ইত্যাদি)। এই ক্ষেত্রে ওই প্রতিষ্ঠানগুলোকে উদ্দেশ্য করে বাইরে থেকে কেউ যখন যোগাযোগ করবেন (যেমন চিঠি বা ই-মেলের মাধ্যমে), তখন তাঁরা লিখবেন ‘মেসার্স আলম অ্যান্ড ব্রাদার্স’ বা ‘মেসার্স গণেশ অ্যান্ড কম্পানি’। এটাই অভিপ্রেত এবং শোভনীয়।
আবার ‘মিস্টার’ শব্দটি পুংলিঙ্গ এবং ‘মেসার্স’ শব্দটি তার বহুবচন হলেও কোনো বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নামে, কোনো স্ত্রীলোকের নামে হলে এবং তার সঙ্গে অন্য কেউ জড়িত থাকলে (যেমন ‘নাসিমা অ্যান্ড ব্রাদার্স’), উপরিউক্ত নিয়মে এই ক্ষেত্রেও ‘মেসার্স’ শব্দটি ব্যবহার করা যায়।

My name is Md. Rashadul Islam. I'm 29 years old and live in Dhaka.